সংবাদ শিরোনামঃ

জাতীয় ঐক্য! ** ন্যায়ের পক্ষে তুরস্ক সাথে আছে মজলুমের দোয়া : জাতির উদ্দেশ্যে এরদোগান ** সন্ত্রাস ও হতাশাগ্রস্ত যুব সমাজ ** জাতীয় দায়িত্ববোধ থেকে ঐক্যের ডাক দিয়েছেন খালেদা জিয়া : মির্জা ফখরুল ** জঙ্গিবাদী কার্ড ও ক্ষমতাসীনদের রাজত্বের মেয়াদ ** সুন্দরবন বাঁচিয়ে বিদ্যুৎ চায় জনগণ ** দলীয় সরকারের অধীনেই আগাম নির্বাচন! ** যারা জঙ্গিবাদের সাথে সম্পৃক্ত তারা ইসলাম ও মানবতার দুশমন ** টার্গেট না থাকায় কর্মসূচিতে স্থবিরতা ** পার্শ্ববর্তী দেশ পানি দিলে আমাদের নদীগুলো ভেসে যায়, না দিলে শুকিয়ে যায় ** জঙ্গিবাদ : মুসলমানরা আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের শিকার ** দল মত নির্বিশেষে বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ান ** বন্যায় ভাসছে দেশ, খবর নেই তেনাদের ** ইসলাম শান্তি ও নিরাপত্তার ধর্ম ** আইবিসিএফ এর সভা ** বন্যায় ভাসছে শাহজাদপুর॥ পানিবন্দী লাখো মানুষের দুর্ভোগ ** কুষ্টিয়ায় আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় আটকে আছে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণের কার্যক্রম ** হরিপুরে গ্রামীণ রাস্তার বেহাল দশা ** সত্যের সৈনিক মুজাদ্দিদে আলফেসানী **

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ শ্রাবণ ১৪২৩, ১ জিলকদ ১৪৩৭, ৫ আগস্ট ২০১৬

আত্মীয়-স্বজন কিংবা বড় কোনো স্বপ্নের হাতছানির অপেক্ষায় নয়, যমুনা চরের ভয়াবহ বন্যায় বাড়ি-ঘর তলিয়ে যাওয়ায় তাদের উপার্জন বন্ধ হয়ে গেছে। এ কারণে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে সাধারণ মানুষ

এম এ জাফর লিটন, শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) থেকে  : কয়েকদিনের অব্যাহত পানি বৃদ্ধির কারণে বন্যার পানিতে ভাসছে শাহজাদপুর উপজেলা। গত ২৪ ঘন্টায় পানি অপরিবর্তিত থাকায় বন্যায় পানিবন্দী হয়ে পরেছে এ উপজেলার  লক্ষাধিক মানুষ। ১৩টি  ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামের পানিবন্দী পরিবারগুলো পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।  সরেজমিনে ঘুরে গত ২৯ জুলাই শুক্রবার উপজেলার সোনাতুনী, গালা, রুপবাটি, ইউনিয়নের গ্রামগুলোর অধিকাংশ ঘর-বাড়ী, রাস্তাÑঘাট, মসজিদ, মাদরাসা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটÑবাজার বন্যায় কবলিত দেখা গেছে। বিশেষ করে যমুনা নদীর দুর্গম চর, রতনদিয়া, ধলাই বিয়ান চর, বানতিয়ার চর, বাঙ্গালার চরের বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লক্ষ্য করা গেছে।প্রায় অর্ধশত মসজিদ ডুবে যাওয়ায় জুমার নামাজ পড়া সম্ভব হয়নি বলে খবর পাওয়া গেছে। যুমনা চরের বাসিন্দাদের বেশির ভাগ ঘরের চাল পানিতে ছুঁই ছুঁই করছে। এসব পরিবারের মানুষ কলা গাছের ভেলা তৈরি করে সেখানে খোলা আকাশের নিচে ভাসমান জীবনযাপন করছে। মানুষের পাশাপাশি গৃহপালিত পশু-পাখিও পরেছে চরম বিপাকে। টিউবওয়ের, টয়লেট পানির নিচে যাওয়ায় দুর্ভোগের যেন শেষ নেই। পরিবার পরিজন ও গৃহপালিত পশু-পাখি নিয়ে  চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশুদ্ধ খাবার পানির সঙ্কট দেখা দিয়েছে। নতুন পানির সাথে ময়লা আবর্জনা ভেসে আসায় পানিবাহিত নানা রোগ ছড়াচ্ছে। উপজেলার বেশির ভাগ মসজিদ, মাদরাসা, হাট-বাজার ডুবে যাওয়ায় বাজার ঘাট করাও তাঁদের জন্য কঠিন হয়ে পরেছে।  গ্রামের রাস্তাÑঘাট ডুবে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পরেছে।  পানিবন্দী পরিবারগুলো নৌকা ছাড়া ঘরের বাইরে যেতে পারছে না। বিভিন্ন গ্রামীণ হাটÑবাজার ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও ডুবে গেছে। যার ফলে বন্যাকবলিত মানুষের যেন দুর্ভোগের শেষ নেই। কাজ কর্ম না থাকায় অলস ও বেকার হয়ে পরেছে দিনমজুর খেঁটে খাওয়া মানুষ।পরিবার পরিজন নিয়ে ঠিকমত খাবার জুটাতে পারছেনা কেউ কেউ। অনেকেই আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে অবস্থান  নিয়েছে। প্লাবিত গ্রামগুলোর মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছে। প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থাও উন্নত নয়। বন্যার পানি প্রবেশের সাথে সাথেই বাড়তে থাকে এ ইউনিয়নের অধিকাংশ মানুষের দুর্ভোগ। বিশদ্ধ পানি, খাবার সঙ্কট প্রকট আকার ধারণ করে। নলকূপগুলো প্লাবিত হওয়ায় মানুষের খাবার পানির সঙ্কট ব্যাপকভাবে দেখা দিয়েছে। এছাড়াও এ এলাকার মানুষগুলোর কাজকর্ম না থাকায় সবাই অলস সময় কাটাচ্ছে। তীব্র খাদ্য সঙ্কটে পরে অধিকাংশ মানুষ ৩ বেলা খাবার জোগাড় করতে হিমসিম খাচ্ছে। পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। তাই অনেকটা আতঙ্ক উৎকণ্ঠায় রয়েছে বন্যা কবলিত গ্রামগুলোর মানুষ। তবে বন্যা কবলিত অঞ্চলের মানুষের বিশুদ্ধ খাবার পানি ও স্বাস্থ্য সুরক্ষায় জরুরি ঔষধ সরবরাহ করা প্রয়োজন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা দুর্যোগ ত্রাণ বিভাগের কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম জানান, ইতোমধ্যেই ৩টি ইউনিয়নে ত্রাণ সহায়তা পাঠানো হয়েছে। তবে বন্যা কবলিত পরিবার বেশি হওয়ায় এই ত্রাণ যথেষ্ট মনে হচ্ছেনা।  জেলা দুর্যোগ ত্রাণ ভাণ্ডারে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় পর্যাপ্ত ত্রাণ সরবরাহ করা আছে।সেলিম রেজা, চৌহালী (সিরাজগঞ্জ) : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে যমুনায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার প্রায় ১১০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের পচাত্তরটি গ্রামে বন্যার পানি ঢুকে পরেছে। নদীতে বিলীন হয়েছে ৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এসব কারণে উপজেলার অন্তত সাড়ে ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এদিকে বন্যার্তদের মাঝে এখনও পৌঁছায়নি পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা অভিযোগ এলাকাবাসীর। কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ সবাইকে ভোগান্তিতে পড়ে মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।  বন্যা কবলিত এলাকা ঘুরে ও শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, চৌহালী উপজেলার পয়লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বাকুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষমধ্যশিমুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,  পাথরাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাপানিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চৌবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরসলিমাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চৌবাড়িয়া পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সম্ভুদিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বারবয়লা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চরধীত পুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সন্তোষা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শেখচাঁদ পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রেহাইকাউলিয়া পূর্ব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চৌবাড়িয়া উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বহলাকোল  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, এ্যায়াজী কাঠালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বীরমাসুকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মিটুয়ানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বীবরাউনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষপুখুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষদেলদারপুর পশ্চিম পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষকাউলিয়া চৌদ্দরশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম চরকোদালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিনহদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দেওয়ানতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ প্রায় ১১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শ্রেণিকক্ষে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। চেয়ার-ব্রেঞ্চসহ বিদ্যালয়ের আসবাব পানির নিচে রয়েছে। এ কারণে এসব প্রতিষ্ঠানের অন্তত সাড়ে ৯ হাজার কোমলমতি শিক্ষার্থীর পড়াশোনা বন্ধ হয়ে পড়েছে। উপজেলার বন্যা কবলিত কোদালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের গিয়ে দেখা গেছে বিদ্যালয়ের পিছনের খোলা আকাশের নিচে একটি গাছের গুঁড়ির ওপর ১৫-২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে ক্লাস চলছে। অবশ্যই বিদ্যালয়ের সমাপনী পরীক্ষার কথা চিন্তা করে তাদের ওয়াপদা বাঁধে অথবা বাড়ির উঠানে খোলা আকাশের নিচে পাঠ দান চালু রাখার বিষয়টি নিশ্চিত করে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) অম্বরিস চন্দ্র সরকার জানান, বন্যায় উপজেলার ১১০টি বিদ্যালয়ে পানি প্রবেশ করেছে। এ কারণে শুকনো নিরাপদ জায়গায় আপাতত ক্লাস চালু রাখা হয়েছে। তবে শিশু শ্রেণি বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া এবারের বন্যায় পাকুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খাষদেলদারপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রেহাইকাউলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (পূর্ব) ও চরমুরাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।এদিকে উপজেলার খাষকাউলিযা, ঘোরজান, উমারপুর, বাঘুটিয়া, সদিয়া চাঁদপুর, এবং স্থাল ইউপির প্রায় ৭৫টি গ্রামে বন্যার প্রানি প্রবেশ করেছে। গত ২৯ জুলাই শুক্রবার সকালে সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীতে বিপদ সীমার ৮৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এসব এলাকার আবাদি জমি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মসজিদ ও হাটবাজারে যাতায়াতের রাস্তা বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে ফলে এলাকার বিভিন্ন পেশার মানুষের কর্মস্থলে যেতে তীব্র সমস্যার সম্মুখীন  হচ্ছে। চরম দুর্ভোগে পড়েছে এলকার মানুষজন। এসব অঞ্চলের মানুষদের উপার্জন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে তারা কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত চৌহালী উপজেলা সদরের খাষকাউলিয়া তাছলিমা খাতুন, রেজাউল করিম, জাহেদুল ইসলাম ও জামিলা খাতুন জানান, এক দিকে যমুনার ভাঙনে বাড়ি ঘর হারিয়ে দূরে আশ্রয় নিয়েছি সেখানে আবার বন্যার পানিতে থাকার ঘর তলিয়ে গেছে। কষ্ট আমাদের পিছু ছাড়ছে না। এ পর্যন্ত কোন সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ সহায়তা এলাকায় পৌঁছায়নি বলেও অভিযোগ করেন তারা। তবে চৌহালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল বারী জানান, বন্যায় যমুনা চরের অন্তত সাড়ে ১০ হাজার পরিবার পানিবন্দী হয়ে পরেছে। তাদের ত্রাণ সহায়তার জন্য সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত ৬০ মেট্রিক টন চাউল ও ১ লাখ ২০ হাজার টাকার শুকনো খাবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে ২৮ জুলাই বৃহস্পতিবার থেকে বিতরণ শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে সবাইকে দেয়া হবে। শাহজাদপুরে বন্যার্ত মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ : শাহজাদপুর উপজেলার গালা ইউনিয়নের যমুনার দুর্গম চর রতনদিয়া, ধলাই বিয়ান চর, গালা, তারটিয়া, ভেড়াকোলা গ্রামে বন্যা কবলিত প্রায় ২ শতাধিক পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়। জেলা দুর্যোগ ও ত্রাণ পুনর্বাসন অধিদফতরের দেয়া ২ টন চাল বিতরণ করেন গালা ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বাতেন। এ সময় শাহজাদপুর সাংবাদিক  ইউনিয়নের সভাপতি দৈনিক সংগ্রামের সাংবাদিক ও সাপ্তাহিক উত্তর দিগন্ত সম্পাদক এম এ জাফর লিটন, শাহজাদপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক দৈনিক মুক্ত সকালের সাংবাদিক আমিনুল ইসলাম, স্থানীয় ইউপি সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ত্রাণ বিতরণকালে দুর্গত নারী-পুরুষের খোঁজ খবর নেন নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আব্দুল বাতেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, তাঁর ইউনিয়নে বন্যাকবলিত মানুষের সংখ্যা অনেক বেশি। তাই পর্যাপ্ত ত্রাণ সরবরাহ করার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।  

এ পাতার অন্যান্য খবর

অন্যান্য মিডিয়া bdnews24 RTNN Sheersha News barta24 Prothom Alo Daily Nayadiganta Jugantor Samakal Amardesh Kaler Kantho Daily Ittefaq Daily Inqilab Daily Sangram Daily Janakantha Amader Shomoy Bangladesh Pratidin Bhorerkagoj Daily Dinkal Manob Zamin Destiny Sangbad Deshbangla Daily Star New Age New Nation Bangladesh Today Financial Express Independent News Today Shaptahik 2000 Computer Jagat Computer Barta Budhbar Bangladesherkhela Holiday Bangladesh Monitor BBC Bangla Redio Tehran
homeabout usdeveloped by

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ মো. তাসনীম আলম।

মহীউদ্দীন আহমদ কর্তৃক জাতীয় মুদ্রণ ১০৯, ঋষিকেশ দাস রোড, ঢাকা - ১১০০ হতে মুদ্রিত ও ১৫ বাংলাবাজার, ঢাকা - ১১০০ হতে প্রকাশিত। যোগাযোগের ঠিকানাঃ ৪২৩ এলিফেন্ট রোড, বড় মগবাজার, ঢাকা - ১২১৭। ফোনঃ ৮৮ ০২ ৮৩১৯০৬৫, বার্তা - ৮৮ ০১৬৭০৮১৩২৭৬, সার্কুলেশন - ৮৮ ০১৫৫২৩৯৮১৯০, বিজ্ঞাপন - ৮৮ ০১১৯৯০৯০০৮৫, ফ্যাক্সঃ ৮৮ ০২ ৮৩১৫৫৭১, ওয়েবসাইটঃ www.weeklysonarbangla.net, ইমেইলঃ weeklysonarbangla@yahoo.com